1. bappy.ador@yahoo.com : admin :
  2. hostctg@gmail.com : Sports Editor : Sports Editor
  3. Onlynayeemkhanbd@gmail.com : Admin admin : Admin admin
  4. afnafrahel@gmail.com : afnafrahel@gmail.com Sports : afnafrahel@gmail.com Sports
রবিবার, ০৯ মে ২০২১, ১১:১৯ পূর্বাহ্ন

ধাওয়ানের সঙ্গে হাতাহাতিতে জড়ালেন বিরাট, মুখ দেখাদেখি বন্ধ

  • সময় বৃহস্পতিবার, ২২ এপ্রিল, ২০২১
  • ১০৮ পঠিত

ভারতে ক্রিকে'টের স্থান বোধহয় ধ'র্মের ঠিক পরেই। ক্রিকেটাররা এখানে মহানায়ক এর সম্মান পান। তবে ক্রিকেটকে ঘিরে চালু রয়েছে বহু জল্পনা ও গাল গল্প। ভারতীয় ড্রেসিংরুম যার সবচেয়ে বড় উৎস। এমনই কিছু ঘটনা দেখে নেওয়া যাক এক নজরে

১) বিরাট-শিখর হাতাহাতি: আশ্চর্য মনে হলেও এটাই সত্যি। হাতাহাতিতে জড়িয়ে পড়েছিলেন ভারতীয় ক্রিকে'টের দুই তারকা। ঘটনাটি ২০১৪ সালের, অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে ব্রিসবেন টেস্টে হারের পর। কোন একটি ইস্যুতে কথা কা'টাকাটি 'হতে 'হতে, ব্যাপারটা হাতাহাতির পর্যায়ে চলে গিয়েছিল। সেই সময় তাদের মাঝখানে ম হে'ন্দ্র সিং ধোনি না থাকলে ব্যাপারটা অন্য দিকে যেতে পারতো। ঘটনার পরে বেশ কিছুদিন মুখ দেখাদেখি বন্ধ ছিল দিল্লির এই দুই ক্রিকেটার এর। পরে যদিও সেই সমস্যা মিটে যায়।

২) ভারতীয় ড্রেসিংরুমে দাউদ ইব্রাহিম: ১৯৮৬ অস্ট্রাল-এশিয়া কাপের ফাইনাল। ভারত-পাকিস্তান। ম্যাচের আগে ভারতীয় ড্রেসিংরুমে ঢুকে পড়েছিল আন্ডারওয়ার্ল্ড ডন দাউদ ইব্রাহিম। কিন্তু কপিল দেব কোনওভাবেই তাঁকে স্বাগত জানাতে রাজি ছিলেন না। এবং বিশ্বকাপজয়ী ভারতীয় অধিনায়ক কপিল দেবকে ড্রেসিংরুম থেকে বেরিয়ে যেতে বলেছিলেন। একটা সময় ফিক্সিংয়ের দায়ে জর্জরিত হয়েছিল ভারতীয় ক্রিকেট। ভারতীয় দলকে সেই অন্ধকার সময় থেকে টেনে বের করেছিলেন সৌরভ গা'ঙ্গু'লি। তবে তাঁরও আগে ভারতীয় দল ও দুর্নীতির মাঝখানে পাঁচিল হয়ে দাঁড়াতেন কপিল দেব।

৩) বীরেন্দ্র সহ'বাগ এর কলার ধরেছিলেন জন রাইট: এমনিতে ঠান্ডা মাথার মানুষ হিসেবে ভারতীয় দলের প্রাক্তন কোচ তথা নিউজিল্যান্ডের প্রাক্তন ক্রিকেটার জন রাইট এর খ্যাতি রয়েছে। এ হে'ন জন রাইট ভারতীয় দলের কোচ থাকাকালীন কলার চেপে ধরেছিলেন বীরুর। ঘটনাটি ২০০২ সালের। ইংল্যান্ডে তখন ন্যাটওয়েস্ট ট্রফি চলছে। প্রতিযোগিতার একটি ম্যাচে দায়সারা গোছের একটি শট মেরে ড্রেসিংরুমে ফিরে এসেছিলেন বীরু। সেই সময় তার কলার চেপে ধরেছিলেন জন রাইট। তবে ঘটনাটি সেই সময় কোনও সংবাদমাধ্যমে বেরোয়নি। জন রাইট পরবর্তীকালে নিজের আ'ত্মজীবনীতে কথা লিখেছেন। সেখান থেকেই জানা গিয়েছিল এই ঘটনা।

৪) ম্যাচ ফিক্সিং আট'কানো: নব্বইয়ের দশকে ভারতীয় ক্রিকে'টে সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য ঘটনা খুব সম্ভবত ম্যাচ ফিক্সিং। নব্বইয়ের দশকের এক ম্যাচে ফিক্সিং নিয়ে বেশ ভয়ে ছিলেন সচিন। তিনি সমস্ত ব্যাপারটা আলোচনা করেছিলেন সৌরভের স'ঙ্গে। এরপর দুজনে সি'দ্ধান্ত নেন নিজেদের সেরাটা দেবেন যাতে ম্যাচ ফিক্সিং আট'কানো যায়। দুজনেই ওই ম্যাচে সেঞ্চুরি করেছিলেন এবং ভারতও জয় পেয়েছিল।

৫) অধিনায়কত্ব ছাড়তে হয়েছিল সৌরভকে: ভারতীয় ড্রেসিংরুমে ক্রিকেটারদের পিছনে লাগার জন্য বেশ কুখ্যাত ছিলেন হরভজন ও যুবরাজ সিং। একবার তারা পিছনে লেগে ছিলেন তৎকালীন অধিনায়ক সৌরভের। তারা একবার বেশ আবেগপ্রবণ হয়ে দাদাকে বলেছিলেন, তোমা'র নেতৃত্বে আর আ মর'া খেলতে চাই না। সৌরভও বেশ আবেগপ্রবণ হয়ে পড়ে ছিলেন এরপর। জানিয়েছিলেন, ঠিক আছে আমা'র অধিনায়কত্বে যদি আস্থা না থাকে তাহলে দায়িত্ব ছেড়ে দেবো। কিন্তু রাহুল দ্রাবিড় ব্যাপারটা খোলসা করার পরে ব্যাট হাতে হরভজন ও যুবরাজকে তাড়া করেছিলেন সৌরভ।

খবরটি শেয়ার করুন..

এ জাতীয় আরো খবর..
কপিরাইট © ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | স্পোর্টস গসিপ.কম
Theme Customized By Sports Gossip
error: Content is protected !!