1. bappy.ador@yahoo.com : admin :
  2. hostctg@gmail.com : Sports Editor : Sports Editor
  3. Onlynayeemkhanbd@gmail.com : Admin admin : Admin admin
  4. afnafrahel@gmail.com : afnafrahel@gmail.com Sports : afnafrahel@gmail.com Sports
মঙ্গলবার, ০২ মার্চ ২০২১, ০৪:৩২ পূর্বাহ্ন

রোহিতের স্ত্রীর কারণে মরতে বসেছিলেন তামিমের ভাই নাফিস ইকবাল

  • সময় বৃহস্পতিবার, ৫ নভেম্বর, ২০২০
  • ২৫২২৯ পঠিত

ক্রিকেটার না হয়ে উপস্থাপক হলেও বোধহয় বাজিমাত করতে পারতেন তামিম। গত কয়েকদিন ধরে চলা তাঁর নিয়মিত লাইভ সেশন কিন্তু সেই কথাই বলছে। দেশি-বিদেশি, সাবেক-বর্তমানের অনেক ক্রিকেটারই আসছেন তাঁর এই নিয়মিত আয়োজনে।

এদিকে গতকাল রাতে আবার হাজির হয়েছিলেন ‘হিটম্যান’ খ্যাত ভারতীয় ওপেনার রহিত শর্মা। দুই ওপেনারের এই আড্ডাতে অন্যসব প্রস'ঙ্গের মতো উঠে এসেছে কিছু মজার ঘটনাও।এরমধ্যে তামিমের বড় ভাই নাফিস ইকবালের স'ঙ্গে আইপিএলে ঘটে যাওয়া একটি ঘটনা সবাইকে বেশ আনন্দ দিয়েছে।

ক্রিকে'টের অনুশীলনে বল থ্রোয়ারদের নিয়ে কথা বলার সময় হঠাৎ করে নাফিস ইকবালের প্রস'ঙ্গে এসে পড়েন তাঁরা।তখনই রোহিত শর্মা বলে উঠেন, ‘আমি তার কথা জিজ্ঞেস করতে যাচ্ছিলাম। উনি আমা'দের স'ঙ্গে গত আইপিএলের আগেরবার ছিলেন। যখন মোস্তাফিজুর ছিল দলে। তাকে আমা'র শুভকামনা জানিও।

তিনি আরো জানালেন, মজার এক কারণে তাঁর স্ত্রী ঋতিকা সাজদে'হ তামিমের ভাইকে এখনো মনে রেখেছেন। এরপর নিজেই সেই ঘটনাটি সবাইকে খুলে বললেন রোহিত, ‘আমি আমা'র স্ত্রীকে এই আড্ডার কথা বলেছিলাম, সে বলল নাফিস ভাইকে হাই বলতে।

তুমি জান তাঁকে কেন মনে রেখেছে সে? কারণ এয়ারপোর্টে নাফিস ভাই তাকে ফ্রেঞ্চ ফ্রাই দিয়েছিল। তাকে জিজ্ঞেস কর। আমা'র স্ত্রীকে যেই ফ্রেঞ্চ ফ্রাই দেয়, তাকেই সে খুব পছন্দ করে। সে ফ্রেঞ্চ ফ্রাই ভালোবাসে।রোহিতের কথা শেষ হলে, তামিম তাঁর ভাইয়ের স'ঙ্গে ঘটে যাওয়া মজার ঘটনাটি সবার স'ঙ্গে ভাগাভাগি করে নেন।

মোস্তাফিজের অ'ভিভাবক হিসেবে আইপিএলের ২০১৮ সংস্করণে গিয়েছিলেন নাফিস। সেবার পরিবারের সদস্যদের জন্য রাখা বিশেষ আসনে রোহিতের স্ত্রীর পাশে বসেই খেলা দেখতে হয়েছিল তাঁকে।এরমধ্যে একদিন খেলা দেখতে দেখতে নাফিসের প্রচন্ড ক্ষুধা পেয়ে বসেছিল।

কিন্তু অম'ঙ্গলের আশংকায় তাঁকে সিট থেকে উঠতেই দেননি ঋতিকা। সেকারণে ঐদিন ক্ষুধায় বেশ কষ্ট পেয়েছিলন তিনি। তামিমের মতে, ‘আমা'র ভাই ভাবির (রোহিতের স্ত্রী) স'ঙ্গে বসে খেলা দেখছিল। তারা পরিবারের জন্য নির্দিষ্ট স্থানে বসেছিল। আমা'র ভাইয়ের ভয়ংকর ক্ষুধা পেয়েছিল, কিছু খেতে চাইছিল।

সে চাইছিল কিছু খেয়ে আসতে কিন্তু ভাবী তাকে যেতেই দিচ্ছিল না। তিনি বলছিলেন, “না, এখানেই থাকতে হবে, খেলা শেষ না হওয়া পর্যন্ত কোথাও যাওয়া যাব'ে না।” আমা'র ভাই তো ক্ষুধায় মর'ে যাচ্ছিল।তামিমের মুখে এই ঘটনাটি শোনার পর রোহিতও একগাল হেসে জানালেন, এটা খুবই স্বাভাবিক ব্যাপার।

তাঁর স্ত্রী বরাবরই কুসংস্কারে বিশ্বা'সী। তাছাড়া এঘটনার পিছনে তাঁদের বন্ধুত্বকেও একটি কারণ হিসেবে দেখিয়ে রোহিত বলেন, ‘হ্যাঁ, সে খুব কুসংস্কারে বিশ্বা'স করে। খেলায় কোনো কিছু ভালো চললে, কেউ যদি নির্দিষ্ট কোথাও বসে, তাদের নড়তে দেয় না সে।

আমি নিশ্চিত ওই দুই মাসে তাদের মধ্যে ভালো বন্ধুত্ব সৃষ্টি হয়েছিল। এক স'ঙ্গে ভ্রমণ করেছে, গ্যালারিতে বসেছে। খুব ভালো সম্পর্ক হয়েছে বলেই সে এভাবে বসে থাকতে বলেছে। কারণ, সম্পর্ক ভালো না হলে কাউকে এভাবে কিছু বললে কি না কি মনে করবে তার তো ঠিক নেই।

খবরটি শেয়ার করুন..

এ জাতীয় আরো খবর..
কপিরাইট © ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | স্পোর্টস গসিপ.কম
Theme Customized By Sports Gossip
error: Content is protected !!