1. bappy.ador@yahoo.com : admin :
  2. hostctg@gmail.com : Sports Editor : Sports Editor
  3. Onlynayeemkhanbd@gmail.com : Admin admin : Admin admin
  4. editor@sports-gossip.com : Edotpr Edotpr : Edotpr Edotpr
শনিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২১, ০৫:৩৮ পূর্বাহ্ন

ব্রেকিং নিউজ। লিটন দাস ও সৌম্য সরকারকে স্থায়ীভাবে টি২০ দল থেকে বাদ দেয়া হচ্ছে।

  • সময় শুক্রবার, ৫ নভেম্বর, ২০২১
  • ১৫৫ পঠিত

বলির জন্য পাঠা-ই কেন সবসময়, দুম্বাতে সমস্যা কী?

আজ সন্ধ্যার পর থেকেই অনবরত মেসেজ পাচ্ছি। সম্ভবত ১২ জন হবে সর্বমোট।

মেসেজের মূল পয়েন্ট ৩টি
– অ'ভিজ্ঞতা বিবেচনায় পাকিস্তানের বিপক্ষে টি২০ সিরিজে আরেকবার সুযোগ পাচ্ছে মুশফিক
-পাকিস্তান সিরিজে অধিনায়ক থাকছে মাহমুদুল্লাহ রিয়াদই
– লিটন দাস ও সৌম্য সরকারকে স্থায়ীভাবে টি২০ দল থেকে বাদ দেয়া হচ্ছে। তবে লিটনকে টেস্ট আর ওয়ানডেতে সুযোগ দেয়া হবে।

খবরের সূত্র হিসেবে ৭১ টিভির উল্লেখ রয়েছে। ২য় পয়েন্ট নিয়ে খুব বেশি কিছু বলার নাই, তবে সেটা শুধুই এই সিরিজের প্রেক্ষাপটে। মাত্র ২ সপ্তাহ পর সিরিজ, শুধুমাত্র এক সিরিজের জন্য কাউকে ক্যাপ্টেন বানানো যায় না।

পরবর্তী টি২০ সিরিজের আগে দীর্ঘ বিরতি পাওয়া যাব'ে, তখন ঠিক করা যাব'ে কার নেতৃত্বে পরবর্তী বিশ্বকাপ খেলবে দল।।তাই আপৎকালীন ব্যবস্থা হিসেবে বিশ্বকাপের অধিনায়ককেই রাখা হচ্ছে।

একটা সিনারিও চিন্তা করা যাক, আবারো আন্ডারপ্রিপার্ড পিচ বানিয়ে পাকিস্তানকে ২-১ এ সিরিজ হারিয়ে দিল, তাতে কি পরের বিশ্বকাপে রিয়াদকেই আ মর'া অধিনায়ক দেখব?

তবে ১ এবং ৩ নম্বর পয়েন্ট নিয়ে আমা'র সিরিয়াস পর্যায়ের আপ'ত্তি রয়েছে, যার সূত্রপাত গত রাতে উৎপল শুভ্র এর শো। সেখানে আলোচক হিসেবে এসেছিলেন নাজমুল আবেদিন ফাহিম, গাজী আশরাফ হোসেন লিপু এবং খালেদ মাসুদ পাইলট।

অনুষ্ঠানের এক পর্যায়ে শুভ্র মন্তব্য করেন এখনকার খুবই জনপ্রিয় টপিক সিনিয়র হটাও, সাকিবের কথা বলার সাহস পায় না, কারণ তার এখনো কিছু পারফরম্যান্স রয়েছে; বিসিবি কি সেপথে হাঁটবে। প্রশ্নের পূর্বেই তিনি একটা উপ ধা'রা যুক্ত করে দেন, বিশ্বকাপে আফিফকে নিয়ে অনেক আশা ছিল তার, সে ব্যর্থ হয়েছে।

এবং বাইরে এমন কোনো খেলোয়াড় বসে আছে কিনা যারা এদের রিপ্লেস করতে পারে।— তার সমগ্র স্টেটমেন্টটা অত্যন্ত চাতুর্যপূর্ণ এবং বায়াসড।
কেন, একটু ফ্যাক্ট বোঝার চেষ্টা করি-
ফ্যাক্ট১- বাংলাদেশ একমাত্র দল যারা ৮টা ম্যাচের কোনো একটাতেও পাওয়ার প্লে কাজে লাগাতে পারেনি। ২৫, ৩০ এই ঘোরাফেরা করেছে, এবং মাত্র ২ বার ৪০ পার করতে পেরেছে কোনোমতে; অন্যান্য দলের বিবেচনায় এটাও বাজে স্কোর। এই দোষ কার? প্রথম ৩ ব্যাটসম্যানের; সেই পজিশনগু'লোতে কারা' খেলেছে? লিটন, নাঈম, সাকিব। তামিম যদি খেলত রান কি ৫০ উঠতো? তামিম দেশের হয়ে ৭৮টা টি২০ খেলেছে, ৭ ম্যাচেও পাওয়ার প্লে তে ওই রান তুলতে পারেনি। অর্থাৎ তামিম, লিটন, নাঈম, সাকিব ৪ জনই অচল; এদের দিয়ে হবে না।

ফ্যাক্ট২- বাংলাদেশ যে দুটো ম্যাচে সবচাইতে বেশি ডট বল দিয়েছে কারা' সেই কালপ্রিট? মুশফিক এবং রিয়াদ। একজন ৯০+, অন্যজন ১০০+ টি২০ খেলেছে। ৭টি বিশ্বকাপ খেলেও বোঝা গেছে তাদের দিয়ে আর হবার নয়। এই দুজন যদি পরের বিশ্বকাপেও খেলে দলের টি২০ এপ্রোচে আদৌ কি কোনো পরিবর্তন আসবে? ধ’রা যাক পাকিস্তানের বিপক্ষে ৩ ইনিংসেই মুশফিক ২০,২২ হারে রান তুললো; তাতে কি প্রমাণিত হলো সে টি২০ এপ্রোচে ব্যাটিং করতে স মর'্থ?

মুশফিক, রিয়াদরা ৭টা বিশ্বকাপ খেলেও মূল পর্বে কোনো ম্যাচ জেতাতে পারেনি, এরা খেলা মানে সাকিবসহ ব্যাটিং পজিশনের ৩,৪,৫ তিনটা পজিশন আবারো টি২০ তে অচল প্লেয়ারদের দখলে রাখা। যারা টি২০ প্রচুর দেখে জানার কথা টি২০ মূলত প্রথম ৪ ব্যাটসম্যানের খেলা, এরা কিছু করতে না পারলে ৬,৭ এর ব্যাটসম্যান এসে ম্যাচ বের করে নিবে এমন ঘটে কালেভদ্রে। পাশাপাশি বাউন্সি পিচে মুশফিক আর রিয়াদ সাউথ আফ্রিকার ম্যাচে যেমন টেইল এন্ডার ধরনের ব্যাটিং করেছে, দেখে যে কেউ হাসতে বাধ্য, অথচ পরের বিশ্বকাপটা হচ্ছে পেস-বাউন্সের প্রতীক অস্ট্রেলিয়াতে।
তাহলে মুশফিক এবং রিয়াদ ঠিক কী কারণে এতটা গু'রুত্বপূর্ণ যে তাদের বাদ দেয়া যাব'ে না?

এখানেই চালাকিটা করেছেন উৎপল শুভ্র। তিনি আফিফের রেফারেন্স নিয়ে এসেছেন যেহেতু আফিফ পারেনি, তার মানে নতুনরা এসে মুশফিক-রিয়াদের চাইতে ভালো কিছু করতে পারবে না।

তার প্রশ্নের প্রেক্ষিতে নাজমুল আবেদিন ফাহিম কী বললেন? তার মতে হুইমজিকালি কোনো সি'দ্ধান্ত নেয়া যাব'ে না, যদি একবার তাদের বাদ দেয়া হয়, এবং নতুনরা খারাপ করে তখন কিন্তু আর তাদের কাছে ফেরত যাওয়া যাব'ে না! হাউ রিডিকুলাস; এটা কোনো ক্রিকেট বিশ্লেষকের চিন্তার প্যাটার্ন 'হতে পারে!

অন্যদিকে একই প্রশ্নের প্রেক্ষিতে লিপু বলেছেন মুশফিক আর রিয়াদ যে এপ্রোচে ব্যাট করেছে খুবই 'হতাশাজনক, এবং এখন বোধহয় ভাবার সময় এসেছে এদের সব ফরম্যাটে খেলার যোগ্যতা আছে কিনা। লিপু খুব ক্লিয়ার এন্ড লাউড- এদের বাদ দাও।

কিন্তু শুভ্র এবং নাজমুল আবেদিন ফাহিমের বক্তব্যকে বিভাজিত করলে কী পাই? ৭টা বিশ্বকাপে ডাব্বা মা'রা সত্ত্বেও, এদের উপরই আস্থা রাখতে হবে। ধরলাম নতুন দের নিয়ে ২টা বিশ্বকাপে ডাব্বা মা'রা হলো, তাতেও কি ৭টার চাইতে অনেক কম নয়? বস্তায় পচে-গলে দুর্গন্ধ নির্গত করছে যেসব প্লেয়াররা কেবলমাত্র পাইপলাইনে কোয়ালিটি প্লেয়ার না থাকার অজুহাতে তাদের বয়ে বেড়ানো কি আরো আ'ত্মঘা'তী নয়?

শুভ্র এর মনোভাব ছিল আরো শ্লেষপূর্ণ- প্রুভেন ফেইলার ক্রিকেটারদের বাদ দিতে বলে সাধারণ দর্শকরা অ'পরাধ করে ফেলেছে, যেকারণে ‘ জনপ্রিয় টপিক, সিনিয়র হটাও, সাকিবকে বলার সাহস এখনো পায় না’ প্রভৃতি ফ্রেজের উদ্ভব।

তার সাথে আমা'র ব্যক্তিগত জীবনে সুসম্পর্ক, নানা বি'ষয়েই কথা হয় মাঝেমধ্যে। তাকে সরাসরি বলেছিও, ‘দাদা আমা'র মনে হয় আপনি টেস্ট সম্পর্কে গভীর জ্ঞান রাখেন, কিন্তু টি২০ এনজয় করেন না, এবং এই ফরম্যাটের ডায়নামিক্স তেমন একটা বোঝেনও না। যে কারণে আপনার টি২০ সংক্রা'ন্ত মতামতগু'লো খুব দুর্বল মেরিটের লাগে’।

তাই টি২০ বি'ষয়ক তার ভাবনাকে গু'রুত্ব দিইনি কখনো? কিন্তু এতগু'লো ক্রিকেট বি'ষয়ক বই লিখে, বিশ্বক্রিকে'টের অজস্র কিংবদন্তীর ইন্টারভিউ নেয়ার পরে ৫৫ বয়সে এসে তিনিও যখন ‘সিনিয়র ক্রিকেটার’ টার্মটি ব্যবহার করেন বিস্মিত হই। ক্রিকেটার দুরকম- অ'ভিজ্ঞ এবং অনভিজ্ঞ; মাঝামাঝি কিছু নাই। ১ জন ক্রিকেটার মাত্র ২ বছর খেলেই অ'ভিজ্ঞ 'হতে পারে, কেউ কেউ ১৫ বছরেও থাকতে পারে অনভিজ্ঞ। নির্ভর করছে গেম সেন্স, গেম রিডিং, এক্সকিউশন, জ্ঞান সহ আরো বিভিন্ন প্যারামিটারের উপর। সিনিয়র, জুনিয়র এসব টার্ম ক্যাডেট কলেজ, ভার্সিটি, হাইস্কুলে ব্যবহৃত হয়, ক্রিকেট মাঠে এস

খবরটি শেয়ার করুন..

এ জাতীয় আরো খবর..
কপিরাইট © ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | স্পোর্টস গসিপ.কম
Theme Customized By Sports Gossip
error: Content is protected !!